Watch The Best Educational TV Live Programs & News Update Today

info@newbangla.tv


ডেঙ্গুজ্বর থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়ার উপায়

ডেঙ্গুজ্বর এ সময়ের সবচেয়ে একটি বড় সমস্যা। শুধু সমস্যা নয় রীতিমতো ভয়ের কারণও। আরো চিন্তার বিষয় হলো ডেঙ্গুজ্বরের নিদিষ্ট কোনো ওষুধ নেই! অথচ হাসপাতালগুলোতে পা রাখার জায়গা নেই। কিন্তু আপনি কি জানেন ডেঙ্গু এর প্রধান সমস্যা হলো পানিশূন্যতা?

তাই শুধু হাসপাতালে ভরশা না রেখে বাড়িতেও এ রোগের চিকিৎসা করা যেতে পারে। প্রচুর পরিমাণ স্যালাইন ও পানি ছাড়াও আপনার হাতের কাছে আছে ডেঙ্গু রোগের মহাওষুধ! জেনে খুশি হবেন, শুধু পেঁপে পাতার রসেই মুক্তি মিলছে ডেঙ্গু জ্বরের। তাই আজকের আলোচনার বিষয় ‘পেঁপে পাতা’।

ডেঙ্গু রোগের মহাওষুধ

পেঁপে পাতার রস ডেঙ্গু ছাড়াও, অন্যান্য রোগের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে, সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। তাই নিজেই ঘরে বানিয়ে ফেলুন ডেঙ্গুজ্বরের মহাওষুধ। ইংরেজিতে একটি প্রবাদ আছে, প্রিভেনশন ইজ বেটার দেন কিউর- প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই ভালো। তাই পেঁপে পাতার রস কীভাবে এবং কখন খাবেন জানার আগে জেনে নিন পেঁপে পাতার গুণাগুন।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীদের, রক্তে প্লাটিলেটের সংখ্যা বাড়াতে সাহায্য করে পেঁপে পাতার রস। গবেষণায় দেখা গেছে, ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত ৪০০ রোগীকে মানসম্মত চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল। তাদের মধ্যে অর্ধেকের ডেঙ্গু ছিল নিয়ন্ত্রণে। তাদের পেঁপে পাতার রসের একটি নির্দিষ্ট ডোজ দেয়ার পর, শরীরে রক্তে প্লাটিলেটের সংখ্যারও উন্নতি হয়। একই সঙ্গে তাদের রক্ত পরিবর্তনেরও প্রয়োজন হয়নি। ডাক্তার এস. কাঠি-রেসান-এর মতে, ডেঙ্গুর ভাইরাস মূলত আমাদের রক্তে প্লাটিলেট কমিয়ে দেয়। সাধারণত প্লাটিলেটের জীবনকাল ৫ থেকে ১০ দিন পর্যন্ত। ডেঙ্গুর ভাইরাস শরীরে যতদিন কার্যকর থাকে ততদিন নতুন প্লাটিলেটের উৎপাদনের ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। পেঁপে পাতার রস ডেঙ্গুর লক্ষণ কমাতে সহায়তা করে। এছাড়া পেঁপের পাতার রসে শক্তিশালী অ্যান্টি-ম্যালেরিয়াল ও অ্যাসেটো-জেনিন নামে এমন এক ধরনের যৌগ রয়েছে, যা ম্যালেরিয়া এবং ডেঙ্গুর মতো রোগগুলো প্রতিরোধে সহায়তা করে।

কীভাবে,কখন এবং কতবার খাবেন

ডাক্তার সানাথ হেট্টিগের মতে, পেঁপে পাতার রস খেতে হলে মোটামুটি কচি পাতা বেছে নেয়া উচিত। এরপর এই পাতা খুব ভালো করে ধুয়ে ব্লেন্ডারে অথবা বেটে রস বের করে ছেঁকে নিতে হবে। এর সঙ্গে কোনো চিনি কিংবা লবণ দেয়া যাবে না। প্রাপ্ত বয়স্কদের দিনে তিন বার ৮ ঘন্টার বিরতি দিয়ে এক কাপ পরিমাণ পেঁপে পাতার রস খেতে হবে আর শিশুদের জন্য আধা কাপ পেঁপে পাতার রস খেতে হবে। রক্তের প্লাটিলেট লেভেল এক লক্ষ পঞ্চশ হাজারের নিচে নামতে শুরু করলেই পেঁপে পাতার রস ২ বেলা করে খাওয়া উচিত ।সেই সঙ্গে ডাক্তারের পরামর্শে অন্যান্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবাও নিতে হবে।

গবেষণায় প্রমাণিত ফলাফল

মালয়েশিয়ার নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় পেঁপে পাতার রসে ডেঙ্গু নিরাময়ের প্রমাণ মিলেছে। এ বিষয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করে ওই বিশ্ববিদ্যালয়। ‘ডেঙ্গু জ্বর নিরাময়ে পেঁপে পাতা’ শীর্ষক ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, ভয়ঙ্কর ডেঙ্গু রোগ সারাতে ঐতিহ্যবাহী ভেষজ হিসেবে পেঁপে পাতার রস খুবই কার্যকরী। অধ্যাপক ড. হি চিং লিকের নেতৃত্বে একদল গবেষক বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করে এ ফলাফল পেয়ে থাকেন।